প্রথম অধ্যায়

প্রথম অধ্যায়– অনুধাবনমূলক প্রশ্ন ও উত্তরসমূহ।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম বলতে কী বোঝায়?সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম হলো এমন একটি প্লাটফর্ম যেখানে মানুষ কম্পিউটার, স্মার্ট ফোন ইত্যাদি যন্ত্রের মাধ্যমে ইন্টারনেট এর সাথে সংযুক্ত হয়ে ভার্চুয়াল কমিউনিটি তৈরি করে এবং ছবি , ভিডিও ও বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করে থাকে। এছাড়া এসকল মাধ্যমগুলিতে মানুষ স্বাধীনভাবে মতামতও প্রকাশ করতে পারছে। অতীতে সামাজিক যোগাযোগের প্রধান মাধ্যম ছিল চিঠি যার কারনে বিশ্ব সাহিত্যের বড় একটা অংশ দখল করে আছে পত্র সাহিত্য। কিন্তু বর্তমানে সামাজিক যোগাযোগের জন্য বিশ্বগ্রামের নাগরিকরা ব্যবহার করে Facebook, Twitter ইত্যাদি সোশ্যাল মিডিয়া ওয়েবসাইট। বিশ্বগ্রাম নাগরিকের  সামাজিক যোগাযোগের সফল ম...
Read More

প্রথম অধ্যায়– জ্ঞানমূলক প্রশ্ন ও উত্তরসমূহ।

ডেটা বা উপাত্ত কী?সুনির্দিষ্ট ফলাফল বা আউটপুট পাউয়ার জন্য প্রসেসিংয়ে ব্যবহৃত কাঁচামাল সমুহকে ডেটা বা উপাত্ত বলে। অন্যভাবে বলা যায়- তথ্যের ক্ষুদ্রতম একককে বলা হয় উপাত্ত।তথ্য কী?তথ্য হল কোন প্রেক্ষিতে সুশৃঙ্খলভাবে সাজানো ডেটা যা অর্থবহ এবং ব্যবহারযোগ্য। অন্যভাবে বলা যায়- ডেটা প্রক্রিয়াকরণ পরবর্তী অর্থপূর্ণ রূপ হলো ইনফরমেশন বা তথ্য। তথ্য দ্বারা কোন ব্যক্তি বা বস্তু সম্পর্কে পুর্নাঙ্গ ধারণা পাওয়া যায়।তথ্য প্রযুক্তি কী?তথ্য সংগ্রহ, এর সত্যতা ও বৈধতা যাচাই, সংরক্ষণ, প্রক্রিয়াকরণ, আধুনিকরন, পরিবহন, বিতরন ও ব্যবস্থাপনার সাথে সংশ্লিষ্ট প্রযুক্তিকে বলা হয় তথ্য প্রযুক্তি।যোগাযোগপ্...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-১০: ICT ব্যবহারে নৈতিকতা, সমাজ জীবনে ICT এর প্রভাব, ICT ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে- ১। প্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিগত ক্ষেত্রে  ICT ব্যবহারে নৈতিকতা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। সমাজ জীবনে ICT এর ইতিবাচক ও নেতিবাচক  প্রভাব ব্যাখ্যা করতে পারবে।  যে কোনো প্রতিষ্ঠানের প্রতিটি তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারকারী ব্যক্তির নৈতিকতার বিষয়ে নিম্নলিখিত নিয়মসমূহ মেনে চলা উচিৎঃ ১। প্রতিষ্ঠানের সকল গোপনীয় তথ্যের গোপনীয়তা এবং বিশ্বস্ততা রক্ষা করা। ২। কোন তথ্যের ভুল উপস্থাপন না করা। ৩। অনুমোদন ছাড়া চাকুরিদাতার সম্পদ ব্যবহার না করা। ৪। অফিস চলাকালীন সময়ের মধ্যে চ্যাট বা ইন্টারনেট ব্রাউজ করে অযথা সময় নষ্ট না করা। ৫। ইন্টারনেটে অন্যের প...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৯: ন্যানো টেকনোলজি।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে-১। ন্যানো টেকনোলজি ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। ন্যানো টেকনোলজির প্রয়োগক্ষেত্রসমূহ বর্ণনা করতে পারবে। ৩। ন্যানো টেকনোলজির সুবিধা ও অসুবিধা বর্ণনা করতে পারবে।  ন্যানো টেকনোলজিঃ পারমাণবিক বা আণবিক স্কেলে অতিক্ষুদ্র ডিভাইস তৈরি করার জন্য ধাতব বস্তুকে সুনিপুণভাবে কাজে লাগানোর বিজ্ঞানকে ন্যানো টেকনোলজি বলে। ন্যানো শব্দটি  গ্রিক nanos শব্দ থেকে এসেছে যার আভিধানিক অর্থ  dwarft কিন্তু এটি একটি মাপের একক হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে। রিচার্ড ফাইনম্যান (Richard Feynman) কে ন্যানো প্রযুক্তির জনক বলা হয়। ১ মিটারের ১০০ কোটি ভাগের এক ভাগকে বলা হয়  ১ ন্যানো মিটার। অর্থ...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৮: বায়োইনফরমেটিক্স ও জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে-১। বায়োইনফরমেটিক্সের ধারণা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। বায়োইনফরমেটিক্সের ব্যবহার বা প্রয়োগ ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৩। জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৪। জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এর ব্যবহার বা প্রয়োগ ব্যাখ্যা করতে পারবে।  বায়োইনফরমেটিক্সঃ বায়োইনফরমেটিক্স হলো বিজ্ঞানের এমন একটি শাখা যেখানে কম্পিউটার প্রযুক্তি, ইনফরমেশন থিওরি এবং গাণিতিক জ্ঞানকে ব্যবহার করে বায়োলজিক্যাল ডেটা এনালাইসিস করা হয়। বায়োইনফরমেটিক্সে যেসব ডেটা ব্যবহৃত হয় তা হলো  ডিএনএ, জিন, এমিনো অ্যাসিড এবং নিউক্লিক অ্যাসিড ইত্যাদি। বায়োইনফরমেটিক্স এর উদ্দ্যেশ: ১। জৈবিক প্রক...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৭: বায়োমেট্রিক্স।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে-১। বায়োমেট্রিক্স প্রযুক্তি ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। বায়োমেট্রিক্স সিস্টেম বাস্তবায়নের উপাদান বর্ণনা করতে পারবে। ৩। বায়োমেট্রিক্স মেকানিজম ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৪। বায়োমেট্রিক্স প্রযুক্তিতে ব্যবহৃত মানুষের গঠনগত এবং আচরণগত বৈশিষ্ট্য ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৫। বায়োমেট্রিক্স প্রযুক্তির প্রয়োগ ক্ষেত্র বর্ণনা করতে পারবে।  গ্রীক শব্দ “bio” যার অর্থ Life বা প্রাণ ও  “metric” যার অর্থ পরিমাপ করা। বায়োমেট্রিক্স হলো বায়োলজিক্যাল ডেটা পরিমাপ এবং বিশ্লেষণ করার প্রযুক্তি। বায়োমেট্রিক্স হলো এমন একটি প্রযুক্তি যেখানে কোন ব্যক্তির গঠনগত এবং আচরণগত  বৈশিষ্ট্...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৬: ক্রায়োসার্জারি, মহাকাশ অভিযান ও প্রতিরক্ষা।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে-১। ক্রায়োসার্জারি চিকিৎসা পদ্ধতি ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। ক্রায়োসার্জারি চিকিৎসা পদ্ধতির সুবিধা বর্ণনা করতে পারবে। ৩। মহাকাশ অভিযানে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রয়োগ বর্ণনা করতে পারবে। ৪। প্রতিরক্ষা ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির প্রয়োগ বর্ণনা করতে পারবে।  ক্রায়োসার্জারিঃ গ্রিক শব্দ ক্রাউস(kruos) থেকে ক্রায়ো (Cryo) শব্দটি এসেছে যার অর্থ বরফের মতো ঠাণ্ডা এবং ‘সার্জারি’ অর্থ শৈল্য চিকিৎসা। অর্থাৎ ক্রায়োসার্জারি হলো এমন একটি চিকিৎসা পদ্ধতি যাতে অত্যধিক শীতল তাপমাত্রা প্রয়োগ করে শরীরের অস্বাভাবিক বা রোগাক্রান্ত কোষগুলোকে ধ্বংস কর হয়। ক্রায়ো...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৫: কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, রোবট, এক্সপার্ট সিস্টেম।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে-১। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (Artificial Intelligence) ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। বিভিন্ন এক্সপার্ট সিস্টেম এবং তাদের ব্যবহার ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৩। একটি সাধারণ রোবটের বিভিন্ন উপাদান গুলো বর্ননা করতে পারবে। ৪। রোবটের বৈশিষ্ট্য এবং এর উল্লেখযোগ্য ব্যবহার বর্ননা করতে পারবে। ৫। এক্সপার্ট সিস্টেম এবং রোবট এর মধ্যে পার্থক্য করতে পারবে।  কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা(Artificial Intelligence): মানুষ যেভাবে চিন্তা-ভাবনা করে সিদ্ধান্ত নেয়, কৃত্তিম উপায়ে যদি কোন যন্ত্রকে সেভাবে চিন্তা ভাবনা করানো যায়, তখন সেই যন্ত্রের বুদ্ধিমত্তাকে কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা বলে। কৃত্রিম...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৪: ভার্চুয়াল রিয়েলিটি।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে- ১। ভার্চুয়াল রিয়েলিটির ধারণা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। ভার্চুয়াল রিয়েলিটি সিস্টেম তৈরির উপাদান সমূহ বর্ণনা করতে পারবে। ৩। ভার্চুয়াল রিয়েলিটির প্রয়োগক্ষেত্র বা ব্যবহার বর্ণনা করতে পারবে। ৪। ভার্চুয়াল রিয়েলিটির ইতিবাচক এবং নেতিবাচক প্রভাব বিশ্লেষণ করতে পারবে।  ভার্চুয়াল রিয়েলিটিঃ কম্পিউটার সিস্টেমের সাহায্যে কোন একটি পরিবেশ বা ঘটনার কৃত্রিম ত্রিমাত্রিক রুপায়ন হলো ভার্চুয়াল রিয়েলিটি। কম্পিউটার প্রযুক্তির সাহায্যে কৃত্রিম পরিবেশকে এমনভাবে তৈরি ও উপস্থাপন করা হয়,যা ব্যবহারকারীর কাছে সত্য ও বাস্তব বলে মনে হয়। ১৯৬২ সালে  মর্টন এল হেলগি তাঁর তৈরি স...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-৩: বিশ্বগ্রামের ধারণা সংশ্লিষ্ট প্রধান উপাদান সমূহ।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে- ১। যোগাযোগের বিভিন্ন ধরণ ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। যোগাযোগের সবচেয়ে সহজ মাধ্যম গুলো ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৩। কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৪। শিক্ষা ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৫। চিকিৎসা ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৬। গবেষণা ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৭। অফিস পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ভূমিকা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৮। স্মার্ট হোম তৈরিতে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-২: বিশ্বগ্রামের ধারণা, বিশ্বগ্রাম প্রতিষ্ঠার উপাদানসমূহ, বিশ্বগ্রামের সুবিধা ও অসুবিধাসমূহ।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে- ১।  বিশ্বগ্রামের ধারণা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। বিশ্বগ্রাম প্রতিষ্ঠার উপাদানসমূহ ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৩। বিশ্বগ্রাম প্রতিষ্ঠার সুবিধা ও অসুবিধাসমূহ ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৪। বিশ্বগ্রামের ধারণা সংশ্লিষ্ট প্রধান উপাদানসমূহ বর্ণনা করতে পারবে।  বিশ্বগ্রামঃ বিশ্বগ্রাম হচ্ছে এমন একটি ধারণা যেখানে পৃথিবীর সকল মানুষ একটি একক সমাজের ন্যায় বসবাস করবে এবং  তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে একে অপরের সাথে যোগাযোগ ও সেবা প্রদান করবে। অর্থাৎ তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি নির্ভর বিশ্বকে বিশ্বগ্রাম বলা হয়। বিশ্বগ্রামের এই ধারণা ১৯৬২ সালে ক্যানাডিয়ান দার...
Read More

প্রথম অধ্যায় পাঠ-১: তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ধারণা।

এই পাঠ শেষে যা যা শিখতে পারবে- ১।  উপাত্ত ও তথ্যের ধারণা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ২। তথ্য প্রযুক্তি ও যোগাযোগ প্রযুক্তির ধারণা ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৩। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির বিভিন্ন ধরণ ব্যাখ্যা করতে পারবে। ৪। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি সম্পর্কিত বিভিন্ন যন্ত্র বর্ণনা করতে পারবে।  ডেটা বা উপাত্তঃ সুনির্দিষ্ট ফলাফল বা আউটপুট পাওয়ার জন্য প্রসেসিংয়ে ব্যবহৃত কাঁচামাল সমুহকে ডেটা বা উপাত্ত বলে। অন্যভাবে বলা যায়- তথ্যের ক্ষুদ্রতম একককে বলা হয় উপাত্ত। Data এর অর্থ ফ্যাক্ট(Fact) যার একবচন হলো Datum। ডেটা এক বা একাধিক বর্ণ , চিহ্ন বা সংখ্যা হতে পারে। ডেটা  বা উপাত্তের প্রকারভেদ –...
Read More